ডাক্তারের ভালোবাসার গল্প মানুষের অজানাই থেকে যাবে

ডা. মুহাম্মাদ আরাফাত : – মেডিসিনের এক প্রফেসরের চেম্বারে বসে আছি। এক লোক তার ওয়াইফকে নিয়ে স্যারের চেম্বারে এসেছেন। স্যার তার ওয়াইফকে দেখে প্রেসক্রিপশ লিখে দিলেন। – স্যারের ভিজিট ৮০০ টাকা। লোকটি স্যারকে ৫০০ টাকা দিলো। – স্যার বললেন …… আমার ভিজিট ৮০০ টাকা। – স্যার, ৫০০ টাকা রাখেন। – ৫০০ টাকা কেনো রাখবো? আপনি জানেন না আমার ভিজিট ৮০০ টাকা? আরও ৩০০ টাকা দেন। – লোকটি আরও ৩০০ টাকা দিয়ে চলে গেলো। .. .. – এরপর আমার এক রুগী ঢুকলো। রুগীটা এতিম। আমিই রুগীটাকে স্যারের কাছে নিয়ে গেছি। স্যার…

প্রতারনা থেকে মুক্ত থাকুন!

ডা. আবু বকর সিদ্দিকী : রুগী আসলে কার? ডাক্তারের না ক্লিনিক এর??? অনেকেই হয়তো প্রশ্ন শুনে ভাবছেন এ আবার কেমন কথা রুগীতো ডাক্তারের হবে! আসলেই কি তাই? বর্তমানে রুগীরা যে প্রতারনার শিকার হয় তার অন্যতম কারণ তার অতি পরিচিত অতি আপনজন মনে করা ফার্মেসীর দোকানদার কর্তৃক! আপনি যাকে আপন মনে করে তার পরামর্শ মত বিশেষ করে অপারেশন এর জন্য নির্দিষ্ট ক্লিনিক এ ভর্তি হচ্ছেন। তিনি কিন্তু আপনার দেয়ার টাকার একটা অংশ নিয়ে যাচ্ছেন (কমিশন)! যার ফলে ক্লিনিক আপনার কাছ থেকে বেশী টাকা নিচ্ছে! অথচ সে বুঝাবে ডাক্তারকে বেশী দিতে হবে,…

কাকে শিক্ষা দিতে আপনি আত্মহত্যা করবেন?

ডা. শিরীন সাবিহা তন্বী : আমরা চিকিৎসকরা রাত দিন রোগ-শোক, দুঃখ-বেদনা,জরাগ্রস্থতাকে খুব কাছ থেকে দেখি। জন্মের মত উৎসবমুখর ঘটনা আর মৃত্যুর মত হৃদয় ভাঙ্গা দৃশ্য একি সাথে চোখের সামনে ঘটতে দেখে অনুভূতিগুলো খানিকটা হলেও ভোঁতা হয়ে যায়। এই ভোঁতা অনুভূতি নিয়েই একটি দৃশ্য বড় করুন লাগে।কোন অসহায় নিষ্পাপ শিশু সন্তানের সামনে থেকে কোন অভিমানী মা যখন আত্মহত্যা করে অকালে বিনা নোটিশে পৃথিবী থেকে চলে যায়। হাসপাতালের মলিন বারান্দায় নগ্ন পায়ে, উষ্ক চুলের, উদভ্রান্ত শিশুটি যখন মা মা মা বলে চিৎকার করে কাঁদছে। আপনি তখন ঐ সন্তানের লালন পালনের কঠোর পথ…

কর্তব্যপরায়ণ…

ডা. জয়নাল আবেদীন টিটু : আমার অফিস সময় শেষ হয়ে গেছে আধঘন্টা আগেই । তখনও অফিস ছেড়ে পুরোপুরি বের হইনি । হাসপাতালে একটি এম্বুলেন্স প্রবেশ করতে দেখে এগিয়ে গেলাম । আনুমানিক ৫৫ বছর বয়সী একজন প্রৌঢ়কে নামানো হচ্ছে অ্যাম্বুলেন্স থেকে । বর্ডার গার্ড অব বাংলাদেশ-এর অ্যাম্বুলেন্স । কাউকে কিছু জিজ্ঞেস না-করে দাড়িওয়ালা প্রৌঢ় ব্যক্তিটিকে পরীক্ষা করা শুরু করলাম । Glasgow Coma Scale-এর মাত্রা ছয় হবে ৷ গলবিলে (Oropharynx) ফেনা জমছে । তার হাত পায়ে মোচড়ানো শুরু হয়ে গেছে । পিউপিলদ্বয় সংকুচিত হয়ে আছে । ভদ্রলোককে যে কয়েকজন তরুণ নিয়ে এসেছিলেন,…

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে ৫টি আবেদন

ডা. কামরুল হাসান সোহেল : (১) আন্তঃ ক্যাডার বৈষম্য দূর করে বিসিএস (স্বাস্থ্য) ক্যাডারকে অন্যান্য ক্যাডারের সমমান করার উদ্যোগ নিন। স্বাস্থ্য ক্যাডারের শীর্ষ পদ কে গ্রেড-১ করা সহ স্বাস্থ্য ক্যাডারের গ্রেড বিন্যাস আধুনিক ও যুগোপযোগী করার উদ্যোগ নিন। (২) চিকিৎসকদের জন্য স্বতন্ত্র বেতন,কাঠামো গঠনের উদ্যোগ নিন। চিকিৎসকদের কর্মঘন্টা অন্যান্য পেশার মতো নয়, তাদের ২৪/৭ সেবা দিতে হয়, একমাত্র চিকিৎসকদেরই ইউনিয়ন পর্যায়ে পদায়ন করা হয়, দুর্গম এলাকায় পোস্টিং দেয়া হয়। চিকিৎসকদের কর্মঘন্টা যেহেতু বেশি এবং দুর্গম অঞ্চলে গিয়ে সেবা দিতে হয়,২৪/৭ সেবা দিতে হয় তাহলে তাদের বেতন, ভাতা ও অন্যান্য সুযোগ…

বিদেশী ডাক্তারও ধর্মঘট করেন!

ডা. জয়নাল আবেদীন : মানুষ মনের সুখে ডাক্তারের মুখ দর্শন করতে চায় না। মোটামুটি চরম একটা মানসিক এবং শারীরিক বিপর্যয় নিয়েই মানুষ ডাক্তারের কাছে আসে। মানুষের এমন মানবিক পরিস্থিতিতে ডাক্তারদের কর্মবিরতি পালন কতটা যৌক্তিক সেটা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যায়। আবার প্রতিনিয়ত পীঠের মধ্যে কিল ঘুষি, হুমকি- হামলার মধ্যে কাজ করাটা ডাক্তার থেকেও কতটা প্রত্যাশিত সেটাও একটা প্রশ্ন। যাই হোক, আলোচনা না; কিছু তথ্য দেয়ার জন্যই এই লেখা। আমাদের মিডিয়া, বেশি বিশিষ্ট, কম বিশিষ্ট, মাঝারি বিশিষ্ট অনেকের কাছে থেকে প্রায়ই শুনি বাংলাদেশই একমাত্র দেশ যেখানে ডাক্তাররা মানুষের জীবনকে জিম্মি করে কর্মবিরতি…

চাই আরো ডাক্তার, প্রয়োজন আরো মেডিকেল কলেজের!!!

ডা. মিথিলা ফেরদৌস : জামাইকে বললাম, : চুল স্ট্রেইট করতে চাই। : কেন? চুল যেমন আছে তেমনই ভাল। : হোক! তবুও শখ হইছে করতে চাই। করবো। : আচ্ছা, ইউটিউবে দেখবো, কেমন করে চুল স্ট্রেইট করে, আমিই করে দিবো! : তুমি করবা মানে!! আমরা বিশ্বে সবচেয়ে বড় বার্ন ইন্সটিটিউটের মালিক হইতে যাচ্ছি, কিন্তু আমি তার রুগী হইতে চাইনা। কয়দিন আগেই পড়লাম, ইন্ডিয়ায় এক স্বামী ইউটিউব দেখে বউয়ের ডেলিভারি বাসায় করাতে গিয়ে বউকে মেরে ফেলেছে। থ্রি ইডিয়টস দেখে রিয়েল ইডিয়টরা শুধু আমাদের দেশেই নাই, ইন্ডিয়াও এমন চিজ আছে তাহলে! ডাক্তার হইতে চাওয়া…

আলোকিত দিনের অপেক্ষায়

ডা. কামরুল হাসান সোহেল : আমাদের দেশের চিকিৎসক খারাপ, রোগ ধরতে পারেনা, অযথা ইনভেস্টিগেশন দেয়, ভুল চিকিৎসা দেয়, ভিজিট অনেক বেশি নেয়, কসাই। বিদেশের ডাক্তার খুব ভাল, রোগ ধরতে পারে, ইনভেস্টিগেশন দেয় না, দিলেও অনেক কম দেয়, সঠিক চিকিৎসা দেয়, ভিজিট বেশি নিলেও অতিশয় সদাশয়, মহামানব। এত ভাল চিকিৎসক আর চিকিৎসা ব্যবস্থা থাকার পরও আমাদের যাদের রিলেটিভ বিদেশে আছেন হোক তা মালয়েশিয়া, সৌদি আরব, কুয়েত, বাহরাইন, ইতালি, ইউ এস এ কম বেশি সবার আত্মীয়-স্বজনই বাংলাদেশে তার রিলেটিভ যদি কেউ ডাক্তার থেকে থাকে বা বাংলাদেশে যার চিকিৎসাধীন তার কাছ থেকে ওভার…

আগে যা হয়নি, এবার তা হবে কী ?

ডা. কা্মরুল হাসান সোহেল : ২০১০ সালে এডহক পদ্ধতিতে ৬,৫০০ চিকিৎসক নিয়োগ দেয়া হয়েছিল চিকিৎসক সংকট মেটাতে আর একটা উদ্দেশ্য ছিল তা ছিল রাজনৈতিক। দুটো উদ্দেশ্যই পূরণ হয়নি, এডহকে বাছবিচার না করে চাকরি দেয়া হয়। যারা রিটেনে অংশ নিয়েছিল তাদের সবাইকে ভাইবা দেয়ার জন্য ডাকা হয়েছিল। তার মানে রিটেন ছিল আনুষ্ঠানিকতা মাত্র, ভাইবা ও প্রায় একই মানের ছিল। সারাদেশ থেকে লিস্ট পাঠানো হয় কেন্দ্রে, লিস্টে যাদের নাম ছিল তাদের সবাই যে একনিষ্ঠ নেতা, কর্মী বা সমর্থক ছিল তা নয়, অনেকের নামই লিস্টে ছিল নিজ স্বার্থের জন্য, নিজের গ্রুপ বড় করার…

প্রফেসর ইয়াসমিন হকের এই গবেষণা নিঃসন্দেহে বড় কিছু

ডা. গুলজার হোসাইন উজ্জল : সাম্প্রতিক SUST এর প্রফেসর ইয়াসমিন হকের গবেষণা প্রসংগ…. আমরা যেমন ভাবছি আবিষ্কারটা বোধ করি তেমন না। যদ্দুর বোঝা যাচ্ছে এটা একটা তত্ত্বীয় গবেষণা। ফলিত বিজ্ঞানের যে পর্যায়ে আমরা একে কল্পনা করছি তেমন নয়। সম্ভবত নিউপ্লাসিয়ায় (সরল ভাষায় ক্যান্সার বা টিউমার) আক্রান্ত কোষগুলির ফিজিক্যাল ক্যারেক্টারের কোন পরিবর্তন উনারা সনাক্ত করতে পেরেছেন। যদি তাই হয়ে থাকে তবে এরকম গবেষণা সামান্য কিছু নয়। নিঃসন্দেহে বড়। আবার ৬০০ টাকায় ক্যান্সার ধরা পড়বে এরকম অলীক কল্পনা করাও ঠিক হবেনা৷ সম্ভবত সব অর্জনকে টাকার মূল্যে বিবেচনা করার চিরাচরিত স্বভাবটাই এখানে কাজ…