একটি ডিভোর্স এবং ওথেলো সিন্ড্রোম

ডা. জোবায়ের আহমেদ : বৃষ্টিস্নাত মন খারাপের বিকেলে জানালা দিয়ে আকাশ থেকে বৃষ্টির নেমে আসা দেখছি। কেমন একটা করুণ কান্নার মত লাগছে আজকের বৃষ্টি পড়ার শব্দ। আকাশের মনে হয় আজ মন খারাপ।সকাল থেকে অজোরে ঝরে যাচ্ছে। তবে মন খারাপ আমার। একটু আগে ফোন দিয়ে আমার বন্ধু সোফিয়া বল্ল, “হারামজাদারে ডিভোর্স দিছি গতকাল, আর সহ্য হচ্ছিল না এই পোকামাকড় এর জীবন”। আমি চুপ করে আছি দেখে বল্ল, তুই আমার বাচ্চাদের জন্য মন খারাপ করিস না। আমি নিজ পায়ে দাঁড়াব। জব পেলে বাচ্চাদের আমার কাছে নিয়ে আসব। সে ফোনে বিভিন্ন প্লানিং বলে…

রোগীকথন

ডা. নাছিমন নাহার মিম্ মি : আউটডোরে রোগী দেখছি। অনেকদিন পরে হাসপাতালে কাজ করছি বলে ভেতরে ভেতরে প্রচন্ড এক্সসাইটেড আমি। রোগীর দেখার ফাঁকেই শুনলাম বাইরে কাউন্টারে একজন নার্সকে বলছেন — বেডি ডাক্তার দেখাইতাম না। বেডা দাক্তুর নাইক্যা আইজগ্যা? আমার মেইল কলিগ সে সময়ে অনকলে ইনডোরে গিয়েছেন। আউটডোরে আমি একাই ছিলাম। সিরিয়ালে তখন ৬৪ নম্বর রোগী চলছে। থাই গ্লাস সরিয়ে রোগী এক ঝলক আমাকে আপাদমস্তক পর্যবেক্ষণ করে নিয়ে আবার বলতে শুরু করল —- এইডা তো অল্প বয়স্কা বেডি দাক্তুর। দেখাইতাম না হেরে। রাগ উঠলেও একটুশখানি পলক দিলাম রোগীর পানে। দেখলাম বয়স…

ছাগল বিত্তান্ত

ডা. গুলজার হোসাইন উজ্জল : মফিজ গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজের মালিক মফিজুর রহমান একটা হাসপাতাল দিয়েছেন। প্রচুর নামকরা ডিগ্রীধারী ডাক্তারদের উচ্চ বেতন দিয়ে কন্সাল্ট্যান্ট হিসেবে রেখেছেন। উন্নত দামী দামী যন্ত্রপাতি এনেছেন। তিনি মালিক হিসেবেও ভাল। কর্মচারীদের নিয়মিত বেতন দেন, ঈদে চান্দে ফুল বোনাস দেন। দিলখোলা মানুষ। কারো কোন বিপদ হলে তিনি এগিয়ে আসেন হাত খুলে। গতবছর তার অফিসের এক কর্মচারীর ক্যান্সার হয়েছিল। তিনি চিকিৎসার পুরো খরচ বহন করেছেন। কর্মচারীরা তাকে অনেক ভালবাসেন। মফিজুর রহমান এককালে বিড়ি ব্যবসায়ী ছিলেন। এখন তিনি গ্রুপ অব কোম্পানীর মালিক। হাসপাতাল দিয়েছেন। তার হাসপাতাল দেশের সেরা হাস্পাতালের…

জীবনের গল্প বলার একটা নিয়ম আছে

ডা. জয়নাল আবেদীন : জীবনের গল্প বলার একটা নিয়ম আছে। হ্যাঁ, আসলেই জীবনের প্রতিটা গল্প বলতে হয় নিয়ম মেনে, সময় বিবেচনা করে। একই গল্প এক জায়গায় চরম মনমুগ্ধকর, আবার অন্যখানে বিরক্তিকর। যে গল্প জন্ম দেয় গণতাচ্ছিল্যের, সেটাই সময়ের বিবর্তনে হয়ে ওঠে হাজারো হাততালির উপলক্ষ্য। চরম দারিদ্রের গল্প বলতে হয় আলো ঝলমলে মঞ্চে। চোখ ধাঁধানো আলোর ভীড়ে দামী জামা কাপড় পরে মাইক্রোফোন হাতে নিয়ে যখন কোনো ব্যক্তি বলে ওঠেন “বন্ধুগণ, আমার জীবন এক সময় ছিল ক্ষুধা আর দারিদ্রে ভরপুর। আমি এক সময় না খেয়ে দিন পার করেছি।” উপস্থিত শ্রোতাগণ তখন শ্বাস…

জীবনের টুকরো গল্প

ডা. নাছিমন নাহার মিম্ মি : আমাদের বোর্ডিং স্কুলে একজন খুব স্পেশাল বাচ্চা আছে। যে খানিকটা Hyperactive ( ডিটেইলস বলতে চাচ্ছি না। যখন এখানকার জব ছেড়ে দিব তখন ইচ্ছে আছে ওকে নিয়ে লিখব আমি )। ধরা যাক ওর নাম প্রবাল। আমাদের এখানে স্কুলে এডমিশন টেষ্ট হবার পরে বোর্ডিং স্টুডেন্টদের মেডিকেল ফাইল তৈরি করতে হয় আমাকে। আমি যখন প্রবালের মেডিকেল টেষ্ট করছিলাম তখন বুঝতে পারছিলাম সে একজন স্পেশাল বাচ্চা। একজন এন্জেল সে। আমার সাথে সে আই কন্ট্রাক্ট করতে পারছিল না। মেডিকেল ডেস্কে রাখা তার জন্য নির্দিষ্ট চেয়ারে সে বসছিল না। সমানে…