নানা আয়োজনে শেবাচিমের সুবর্ণ জয়ন্তী পালিত

দক্ষিণবঙ্গের সর্ববৃহৎ নির্ভরযোগ্য চিকিৎসা ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবামেক) হাসপাতালের ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে তিন দিনব্যাপী সুবর্ণ জয়ন্তী পালিত হয়েছে। উৎসবের দ্বিতীয় দিনে আনন্দ র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয়। আর উৎসবের দ্বিতীয় দিনে সোমবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে গোটা অনুষ্ঠানের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।

সোমবার (০৮ অক্টোবর) সকাল ১০টার দিকে একাডেমিক ভবনের সামনে থেকে র‌্যালিটি বের করা হয়।

এতে প্রতিষ্ঠানটির বর্তমান ও সাবেক শিক্ষার্থীরা অংশ নেন। র‌্যালিটি কলেজ ক্যাম্পাস থেকে বান্দরোড, চাঁদমারি হয়ে পুনরায় ক্যাম্পাসে গিয়ে শেষ হয়। র‌্যালির অগ্রভাগে হাতি ও মধ্যখানে ঘোড়ার গাড়ি ছিলো মূল আকর্ষণ।

র‌্যালি শেষে কলেজ ক্যাম্পাসে নবনির্মিত সুবর্ণ জয়ন্তী স্মৃতিস্তম্ভ উদ্বোধন করেন শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মেডিসিন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান এএফএম আমিনুল ইসলাম।

এসময় তার সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন কলেজ অধ্যক্ষ ডা. ভাস্কর সাহা, হাসপাতাল পরিচালক ডা. বাকির হোসেন, শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজের সাবেক ছাত্র সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ডা. টিআইএম আব্দুল্লাহ আল ফারুক, বিএমএ বরিশালের সভাপতি ডা. ইসতিয়াক হোসেনসহ সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীরা। পরে ডাঃ এ.এফ.এম আমিনুল ইসলামকে কলেজের পক্ষ থেকে সন্মাননা স্মারক প্রদান করা হয়।

এদিকে কলেজের সাবেক ছাত্র-ছাত্রীদের উপস্থিতিতে আনন্দ আর হাসি-ঠাট্টার মধ্যদিয়ে গোটা ক্যাম্পাস মিলনমেলায় পরিনত হয়। ক্যাম্পাসের স্মৃতিময় জায়গাগুলো ঘুরে দেখছেন সাবেক এ শিক্ষার্থীরা।

শে

কলেজের সাবেক ছাত্রনেতা আবু তালিব বলেন, মেডিকেল কলেজের এ আয়োজন স্মরণীয় হয়ে থাকবে। শিক্ষাজীবন শেষ করে দীর্ঘবছর পর আবার সবাই একসঙ্গে হয়েছি। আর এ এক হওয়ার মধ্যে আনন্দ একটাই কলেজের প্রথম ব্যাচ থেকে ৪৯তম ব্যাচের শিক্ষারার্থীরা রয়েছেন। যদিও প্রথম দিকের ব্যাচের অনেক শিক্ষার্থীই পৃথিবীর মায়া ছেড়ে গেছেন, তারপরও যারা আছেন তাদের দেখতে পাওয়াটাও আমাদের কাছে ভাগ্যের ব্যাপার।

সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপনের সাংগঠনিক সভাপতি ও প্রতিষ্ঠানটির ছাত্র সমিতির সাবেক সভাপতি অধ্যাপক ডা. টিআইএম আব্দুল্লাহ আল ফারুক বলেন, ১৯৬৮ সালের ২০ নভেম্বর দক্ষিণবঙ্গের সর্ববৃহৎ চিকিৎসাসেবা প্রতিষ্ঠান শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপতালের যাত্রা শুরু হয়। আর সেই হিসেবে চলতি বছরের ২০ নভেম্বর শেবাচিমের ৫০ বছর পূর্তি হবে। কিন্তু আগামী নভেম্বর মাসটি ভোটের মাস হওয়ায় আগে ভাগেই অর্থাৎ ৭ অক্টোবর থেকে তিন দিনব্যাপী মেলার আয়োজন করা হয়েছে।

Related posts

Leave a Comment