ডাক্তার এখন সবার কাছে জিম্মি!

ডা. ফয়সাল আলম :

এই দেশে ডাক্তারি পড়ে আর্থিকভাবে চলা এখন মসিবত।

বাড়িওয়ালা ডাক্তার ভেবে বাসা ভাড়া বাড়ায়, চেম্বার দিব শুনলে দোকানের মালিক অন্যদের থেকেও দুইগুন বেশি ভাড়া বাড়িয়ে দেয়, বিয়ের সময় কনে পক্ষ মোহরানা স্বর্ন গয়নার পরিমান বাড়িয়ে দেয়, ডাক্তার শুনলে স্বাভাবিক থেকেও বেশি মেস ভাড়া বেড়ে যায়, মাছ ব্যাপারি – মাংসের দোকানকার আড় চোখে দেখে কেজিতে বাড়ায়ে আরো কিছু বকশিস দেই কিনা।

জমি কিনতে গেলে জমির দাম বাড়ায়, সুযোগ পেলে রিজার্ভ গাড়ি ভাড়াও বাড়ে। ডা পরিচয় দিলে কোনোকিছুতে নিস্তার নেই।

সামর্থ্যের বাইরে গিয়ে কেউ একটু পুরনো কমদামী পোষাক পড়লে আনস্মার্ট তকমা দিয়ে বসে। এ দেশের পাবলিক এখনো মনে করে ডাক্তার মানেই চোখের পলকে ৫০০ টাকা ভিজিট সবার, লাখ টাকা বেতন দেয় সবখানে। অন্য পেশাতে এর চেয়ে বেশি কামালেও ওসব কখনো এদেশের পাবলিকের নজরে আসে না। টিনের চশমা পড়ে থাকে তখন। কারণ তাদের টাকাটা মাস শেষে বেতনের মধ্যে ইনভিজবল মানি হিসেবে থাকে। অবস্থা বুঝতে এপোলো / স্কয়ারের মত হাসপাতালে একজন সদ্য নিয়োগ এমও’র কয় টাকা বেতন জেনে নিয়েন কেউ।

একজন সদ্য ডাক্তারের ইনকামে এখন মধ্যবিত্ত একটা সংসার চলে বড়জোর। সঞ্চয় বলে কিছুই থাকে না। ডাক্তার এখন সবার কাছে জিম্মি। তার উপর আছে পোস্ট গ্রাজুয়েশন কোর্স চালিয়ে নেওয়ার খরচ ও সময়। পরিবারের সবাই মুখিয়ে থাকে এই বুঝি তার সন্তান সংসার স্বচ্ছল করে ফেলবে চোখের পলকে।

মা বাবাকে জীবদ্দশায় কিছু দিতে চাইলে এখন আর কেউ এই পেশায় আসার দরকার নাই। সরকারি বেসরকারি বুঝি না, বরং মা বাবার অগাধ টাকা থাকলেই শুধু আসবেন।

Related posts

Leave a Comment